প্রেমিকের মা অপমান করায় প্রেমিকার আত্মহত্যা

বরগুনার পাথরঘাটায় গলায় ওড়না পেঁচিয়ে তুবা আক্তার নামে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। বুধবার (২০) আগস্ট বিকেলে ওই ছাত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

মৃত তুবা পাথরঘাটা পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের সেন্টু মিয়ার মেয়ে।

তুবার স্বজনরা জানান, এসএসসি পরীক্ষার্থী তুবার সঙ্গে লাকুরতলা গ্রামের আলমগীর হোসেনের ছেলে সজীব হাসানের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি সজীবের মা জানতে পেরে ক্ষীপ্ত হন। পরে বুধবার সকালে নিজের ছেলেকে নির্দোষ দাবি করে তার ছেলেকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে বিরক্ত করার অভিযোগ করতে আসে তুবার স্বজনদের কাছে। এ সময় সজীবের মা মাজেদা বেগম তুবাকে চরিত্রহীনসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন।

তুবার স্বজনরা শুধু তুবার দোষ নয়, ছেলে-মেয়ে দুইজনেরই দোষ বলে মাজেদা বেগমকে বোঝাতে চেষ্টা করলে আরও ক্ষীপ্ত হন তিনি। এরপর তুবার বাবা-মাকেও অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে চলে যান। দুপুরের দিকে তুবাকে তার মা ডাকতে গেলে কোনো সাড়া পান না। পাশাপাশি রুমের দরজা ভেতর থেকে বন্ধ দেখে স্থানীয়দের সহায়তায় দরজা ভেঙে তুবাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। পরে পুলিশে খবর দিলে তুবাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎস্যক মৃত ঘোষণা করেন।

তুবার বাবা মো. সেন্টু মিয়া জানান, সজীবের সঙ্গে তুবার প্রেমের সম্পর্কের খবর পেয়ে মেয়েকে লেখা-পড়ায় মন দিতে বলেন। তবে, এরপর আর তার মেয়ে সজীবের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। এরপর সজীব তুবাকে ফোনে না পেয়ে নানান কৌশলে তুবার সঙ্গে যোগাযোগ করে। উল্টো সজীবের মা তুবা এবং আমাদের দোষারোপ করতে এসেছিলেন সকালে। যেহেতু আমি মেয়ের বাবা তাই তার সব অভিযোগ মাথা পেতে নিয়েছি। কিন্তু সকালে যখন সজীবের মা আমাদের চরিত্র নিয়ে কথা বলে আমাদের অকথ্য ভাষায় গালি দেন, তখন আমার মেয়ে তার রুমে গিয়ে কান্না করতে থাকে। শেষ পর্যন্ত আমার মেয়েটা মরেই গেলো।

তিনি কান্নায় ভেঙে পড়ে বলেন, আমার মেয়ের একার দোষ ছিল না। ওদের বয়স কম, তাই এমন সম্পর্কে জড়িয়েছে। আমি মেয়েকে শাসন করেছি। কিন্তু অতিরিক্ত শাসন করিনি। কি লাভ হলো তাতে? আমার ১৩ বছরের মেয়েটাকে চরিত্রহীন বলে গালি দিলো। আমাকে ও আমার স্ত্রীকেও গালি দিলো। মেয়েটা কষ্টে মরেই গেল।

এ বিষয়ে পাথরঘাটা থানার ওসি আবুল বাশার জানান, আত্মহত্যার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। পুলিশ বাদী হয়ে একটি অপমৃত্যুর মামলাও করেছে। তবে এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*